rss

Wednesday, April 18, 2012

Sakilar Topto Dupur


কোনদিন চাচী`র দরজায় টোকা দেই নি, আজকেও দিলাম না, ঠেলা দিয়ে হুরমুর করে ঢুকে পড়লাম। সদ্য বাহির থেকে ফিরেছেন, ব্লাউজ ছেড়েছেন ঠিক ই, ব্রা খোলার সময় পাননি। দরজার শব্দেই জাপটে ধরলেন বুকের উপর, পাতলা শাড়ি`র নিচে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে কালো ব্রা`র ফিতা। জড়ানো গলায় বললেন, `কী রে তুই এলি কখন?` উত্তর দেয়ার ইচ্ছে করল না, তাছাড়া কাঁচা ঘুম ভাঙ্গা’র বিরক্তি তো আছেই।

“তোর মা-বাপ কেউ আসেনি?”
“আব্বা আসছে, চাচা’র সাথে কই গেল।”
“হ…….মামলা-মোকদ্দমা কী নাকি আছে।”
আমি চুপ করে রইলাম, চাচা’র বাসায় আসা খুব যে এনজয় করি তা না, বরং বিরক্তি লাগে যখন কাঠফাটা রোদের মধ্যে এতদূর হাঁটতে হয়। তবে এতদূর গ্রামে আসাটা ঠিক স্বত:প্রবৃত্ত নয়, প্রতি বছরই আব্বা’র মামলা মোকদ্দমা’র কোনও কাজ থাকে, আব্বা দু’চারদিনের অফিস ফেলে চলে আসেন।
“দুপুরে ভাত খেয়েছিস, জলি কিছু দিছে?”
আমি কথা বললাম না, ভাত না খেলে এই দুপুর পর্যন্ত টিকে থাকা সম্ভব না, যে কোনও সাধারণ মানুষের পক্ষে তা বোঝা সম্ভব। কিন্তু চাচী সাধারণ মানুষ না, তিনি বিরক্তিকর ধরনের ঝিঁঝিঁ পোকা টাইপের মহিলা, কারণ ছাড়াই ক্যাড়ক্যাড় করে মানুষের ঘুম ভাঙ্গানি ছাড়া কোনও কাজ নেই।
“কী জলি ভাত দেয় নাই তোরে, জলি…….জলি……..” চাচী’র চিত্jকারে আমার ই মেজাজ খারাপ হয়ে গেল, সামান্য ব্যাপারে এমন বাড়ি মাথায় তোলার কিছুই নাই।
“খাইছি তো”
“খাইলে চুপ কইরা আছিস ক্যান?” আবারও বিরক্তি ফুটিয়ে বসলেন খাটের কাঁধের উপর। বুকের উপর থেকে হাত সড়ে গেছে অনেক আগেই, হেলান দিলেন খাটের কাঁধায়, হাত টেনে চুল ছড়িয়ে দিলেন পিঠের উপর। চকচকে কামানো বগলের উপর হালকা সবুজ রঙের আভা, বয়স হলেও নিজেকে টিপটপ রাখেন সবসময়।
“তোর মায়ে কেমন আছে?”
“আছে ভালই, তবে মাথার ব্যথাটা একটু বাড়ছে।”
“তোর মায়েরে কত কইলাম গ্রামে কত ফকির-কবিরাজ আছে, একটু চেষ্টা তদবির কর। উনার তো এগুলা গায়ে লাগে না।”
আমি চুপ করে গেলাম, তাবিজ-তুমার কইরা যদি মাইগ্রেনের ব্যাথা ভাল হইত তাহলে তো কথাই ছিল না। আমি জানালা’র পর্দা গলিয়ে বাইরে তাকালাম, জলি আসছে এইদিকে।
”ডাকতেছ ক্যান?”
“ডাকছি তো অনেক আগে, তুই কী করিস?”
“ঘরে একটু বসছি, চোখ ধইরা আসছে”
“ওরে কি খাইতে দিছিস?”
“তুমি স্কুলে তরকারি বাইন্ধা নিয়া গেছিলা না, একটু বাচছিলো।”
“স্কুলের তরকারি তো সকালের, দুপুরে কিছু রাধিস নাই।”
“রাধছি না, ডাইল রানলাম আম দিয়া”
জলি ঠেলা দিয়ে বসল খাটের উপর, সরে জায়গা করে দিলাম। গ্রামের দিকে আত্মীয় আর কাজের মহিলা’র পার্থক্য কোনদিন বুঝিনি, জলি সম্পর্কে আমার ফুফু হলেও এখানে থাকেন কাজের মহিলা’র মত। অন্যান্য স্বাভাবিক সম্পর্কের মতই তুমি থেকে তুই বজায় রাখেন সবার সাথে।
”শাড়ি ব্লাউজ কিছু শুকাইছে?”
“আরেকবার উল্টায় দেয়া লাগবো।”
“ধুইছস কখন এখনো শুকায় নাই? এখন ঘামের কাপড় পইড়া কতক্ষন থাকমু?”
লম্বা নি:শ্বাস ফেলল চাচী, হাতজোড়া পিছনে নিয়ে টুক করে খুলে দিল ব্রা’র হুক, টেনে নামিয়ে নিয়ে এল বুকের উপর থেকে। মেঝের উপর ছুড়ে ফেলে দিয়ে আঁচল টেনে দিল বুকের উপর। পা’ দুখানি ছড়িয়ে দিতেই শাড়ি উঠে গেল অনেক উপরে, তবে মহিলা সেদিকে ভ্রুক্ষেপ করলেন বলে মনে হয় না, একটা পাখা নিয়ে জোরে হাঁকাতে লাগলেন মাথা’র উপর।
“তুই বইসা আছিস ক্যান, ওরে বাতাস কর।”
নিতান্তই অনিচ্ছা সত্ত্বেও পাখা তুলে নিল জলি, হাত উঁচু করে মৃদুলয়ে হাঁকাতে লাগলো মুখের কাছে। এতক্ষণে নজরে এলো জলি’র বগলে বড় বড় লোম, সকাল থেকে ব্যাপারটা ঠিক গোচরে আসেনি। গ্রামের দিকে মহিলার ব্লাউজের তেমন তোয়াক্কা করে না, তিরতিরে আঁচলের নিচে মৃদু-মন্দ হওয়া লাগাতেই বেশ স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।
“পূব পাড়া’র রহমতে’র মা আছে না……”
“কী হইছে ওই বুড়ি’র?”
“সকল বেলা হার্টফেল করছে।”
“ক্যামনে?”
“রোদে দাড়ায় ছিলো অনেকক্ষণ, পরে সবাই আইসা দেখে মাটিত পইড়া আছে।”
“গরম ও যা পড়ছে, আমাগো আঁইঢাঁই অবস্থা, বুড়ি মানুষ টিকবো ক্যামনে!!”
নিজের কথা’র সত্যতা প্রমাণ করতেই হয়ত পেটিকোট হাঁটু’র উপরে তুলে দিল, পা গুটিয়ে বাড়িয়ে দিল পাখা’র গতিবেগ।
“আচ্ছা যা তো দেখ, কাপড় উল্টায় দে”
“শুকায় নাই, একটু আগে দেখছি, আমারও শাড়ি পেটিকোট আছে।”
“তোর শাড়ি-পেটিকোট আছে মানে?”
“সাবান পানি কিছু বাঁচছিলো, ঢুকাই দিছি”
“এখন পইড়া আছোস কার কাপড়?”
“তুমি কাথা সেলাইতে রাখছিলা না, অইখান থেকেই একটা টাইনা লইছি”
“কাথা-মুড়ি ভাঙ্গস নাই তো?”
“আরে নাহ”
“তাহলে যা এই গামছাটা ভিজায় নিয়ে আয়”
মহিলা গামছা নিয়ে বেরিয়ে গেলো। আমি আসলেই বেশ অবাক হলাম, পাতলা ঝলঝলে একটা শাড়ী। নিচে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে থামের মত পা, পেটিকোটের কোনও বালাই নাই। জলি চলে যেতেই চাচী উঠে দাড়াল, শাড়ি তুলে পেটিকোটের বাধন খুলে দিল কোমর থেকে। আবার শাড়ি নামিয়ে পেটিকোট ফেলে দিল পায়ের নিচে, আঁচলখানি ঠিক করে সহজ স্বাভাবিকভাবে বসল খাটের উপর।
গামছা তুলে দিয়ে আগের জায়গায় বসল জলি, কাঁধ থেকে আঁচল নামিয়ে চালান করে দিল বগলের নিচে। কোনরকমে পা’দুখানি গুটিয়ে আবার বাতাস করতে লাগলো পাখা ঘুরিয়ে।
সেই তুলনায় চাচী অনেক বেশি সাবলীল, গামছা হাতে পেতেই কাঁধের উপর ঘুরিয়ে নিয়ে এলো একবার। একখানা হাত উপরে তুলে গোড়া থেকে মুছে নিয়ে গেলো আঙুল পর্যন্ত, শাড়িখানা আরেকটু সরিয়ে ঘষতে লাগলো বগলের উপর। গামছা দলা পাকিয়ে চালান করে দিল বুকের উপর, খাজের মাঝখানে সামান্য ঘষা দিতেই আলগা হয়ে গেলো একখানা স্তন, স্পষ্ট দেখতে পেলাম কাল রঙের চুচি। তবে মহিলা’র সেদিকে খেয়াল আছে বলে মনে হল না, গামছা বের করে চালান করে দিল স্তনের নিচে। আঁচল সরে বেধে গেলো খাজের মাঝখানে, বা হাতে কাপড় ঠিক করে পা ছড়িয়ে বসল। শাড়ি হাটু`র উপর তুলে গামছা দিয়ে ঘষতে লাগলো গোড়ালি থেকে। ধীরেধীরে শাড়ি উঠতে থাকলো উপরে, গামছা`র টানে টানে শাড়ি গিয়ে ঠেকলো কুচকি`র কাছাকাছি। শেষে গামছা প্রচরণ থামল ঠিকই, কিন্তু শাড়ি কুচকি থেকে নামল না। দু`পায়ের মাঝখানে গুজে দিয়ে ল্যাপচা মেরে বসলেন চাচী।
গামছা জলি`র বুকের উপর ছুড়ে দিয়ে বললেন `যা নাইড়া দিয়া আয়।` জলি নড়াচড়া`র তেমন কোনও লক্ষণ দেখলো না, বরং পাখা`র বাট ঘষতে লাগলো পিঠের উপর।
`গরমে গামাচি কেমন বাড়ছে দেখছো`
কাধের উপর হাত তুলে আরেকবার আরমোড়া ভাঙলেন চাচী, কাঁধ থেকে আঁচল নামিয়ে বুকের উপর জড়ো করে রাখলেন।
“আর বলিস না, চুলকানিতে গায়ে ব্লাউজ রাখতে পারি না গায়ে। পাউডার লাগালে চিরবিড়ানি যেন আরো বাড়ে।”
জলি ডানস্তনের ঠিক নিচে চুলকাতে লাগলো, বামহাতে দুধ টেনে ধরে গালিয়ে দিলো আরো দু’একটি ঘামাচি। শেষে দুধ ছেড়ে কাপড় টেনে দিলো ঠিক ই, অর্ধেক স্তন বেরিয়ে রইল আঁচলের বেড়ে’র পাশে। নড়বড়ে ছাপরা’র মত কোনরকমে বোটাখানি চেপে রইল অদৃড় আঁচল।
“জহিরের বাড়ি গেছিলি?”
“হ………..গেছিলাম কাল রাইতে”, আরমোড়া ভাঙ্গা’র মত গা টেনে ধরল জলি, খাটের কাঁধায় পিঠ ঠেকিয়ে চুল ঝুলিয়ে দিল শূন্যের উপরে। বিশাল এক হাই তুলে আবার হেলান দিয়ে বসল, বুকের উপর শাড়ী’র অবস্থান প্রায় ভীতিকর পর্যায়ে ঠেকেছে।
“দরজাই খোলে না, আর কী কইব”, মৃদুলয়ে পাখা ঘুরাতে লাগলো জলি। হাটু জড়িয়ে বুকের কাছে আনতেই বুকের কাপড় সরে গেল অনেকখানি, শাড়ি কুচকি’র ফাকে জড়িয়ে রেখে পা দুখানি ছড়িয়ে দিল দুই দিকে।
“দরজা খুলবো না ক্যান, কী হইছে?”
“এত দরজা ধাক্কাই কোনও সারাশব্দ নাই, দু’একবার বৌয়ের নাম ধরেও ডাকলাম।”
“হারামজাদা বউ লইয়া আবার শ্বশুরবাড়ি গেছে নাকি!!”
“সেটা দেখা’র জন্যেই তো জানালা দিয়া উকি দিলাম”
“এরপর”
“যা ভাবছিলাম তাই, ধইরা বৌয়ের দুধ কচলাইতেছে”
“নিশি রাইতেই শুরু কইরা দিছে”
“জোয়ান মর্দো, নিশি রাত আর শেষ রাত আছে নাকি!!”
“দরজা খুলছেনি পড়ে”
“আমি আর খাড়াই নাই, চইলা আইছি পেছন ফিরা”, বুকের কাপড় প্রায় সম্পূর্ণ সরে গেছে, দলা পাকিয়ে পড়ে আছে উন্মুক্ত স্তনযুগলের নিচে।
“হারামজাদারে কখনও পাস না, এমুন হাতে পাইয়া ছাইড়া দিলি”, খানিকটা নাখোশ হলেন চাচী। খানিকটা কাত হয়ে বালিশ টেনে নিলেন পিঠের’র নিচে, দেহখানি সোজা করে আমার দিকে পা বাড়িয়ে দিতেই মিহি সুরে বেজে উঠল মোবাইল। আমরা তিনজনেই তাকালাম টেবিলের উপর সবুজ হয়ে উঠা যন্ত্রটির দিকে, গ্রামের দিকে আজকাল বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। দিনের অধিকাংশ সময় কারেন্ট থাকে না ঠিকই, কিন্তু প্রতি ঘরে ঘরে মোবাইল উপস্থিত। এসব মোবাইল চার্জ করে কেমন করে কে জানে।
মোবাইলের শব্দে তড়াক করে লাফিয়ে উঠলেন চাচী, হুড়মুর করে ছুটলেন টেবিলের দিকে। বেসামালে শাড়ি প্রায় খুলে পড়ে যাচ্ছিলো, মুঠি করে চেপে ধরলেন তলপেটের উপর। বুকের উপর থেকে সরে গেছে অনেক আগেই, পাছা’র উপর থেকেও নেমে গেল ছেড়ে দেওয়া পর্দা’র মত। পরিস্থিতি সামাল দিতেই তিনি আরও জড়িয়ে চেপে ধরলেন, টেনে ধরলেন আরও উপরে। মুহুর্তেই উন্মুক্ত হল তলপেটের নিচে থেকে, তবে তিনি সেদিকে ভ্রুক্ষেপ করলেন না, মোবাইল কানে জড়িয়ে হাসিমুখে বললেন “হ্যালো।”
ওপারের কন্ঠে বেশ উত্তেজিত মনে হলো চাচীকে, খুলে পড়া শাড়ি’র কথা প্রায় ভুলে গেলেন সাথেসাথে। আমাদের দিকে ফিরে বেশ উচ্চশ্বরে চিত্Jকার করতে লাগলেন। সদ্য কামিযেছেন তাই আশেপাশের গা বেশ মসৃণ, মৃদু দোলা খেতেই প্রসারিত হলো মাঝখানের খাঁজ। সত্যি বলতে দু’পা প্রসারিত অবস্থায় যোনি যেভাবে ফুটে উঠে, অন্ধকারময় গুহাকে ঘিরে ঠোটের বৃস্তৃতি যেভাবে বোঝা যায়, দাড়ানো অবস্থায় শুধু পাতলা এক চির ঝুলে থাকে সেখানে। ঠিকভাবে চিনিয়ে না দিলে, অন্যান্য খাঁজ থেকে আলাদা করা মুশকিল। তবে এহেন অবাধ প্রদর্শনীতে চাচী’র মনে কোনও ভাবান্তর নেই, ওপারের কন্ঠের সাথে ঝগড়ায় মশগুল তিনি। টানা 10 মিনিট ঝগড়া করে টেবিলে ছুঁড়ে দিলেন মোবাইল, পিছন ঘুরে শাড়ি প্যাচাতে লাগলেন পুরো শরীরে। কোনও রকমে কোমড়ে গুঁজে এসে মৃদু চড় বসিয়ে দিলেন আমার গালে, “অ্যায় হারামজাদা চাচী’র দিকে এভাবে কেউ তাকায় থাকে?”
চোখেমুখে শয়তানী’র হাসি ফুটিয়ে নিজেকে গুটিয়ে নিলাম জলি’র কাছাকাছি, এমন ভাব করলাম যেন খুব লজ্জা পাচ্ছি। জলি হাসিমুখে টেনে নিলো তার বগলের নিচে, আমার দু:খে বেশ সমব্যাথী।
“যা ওর বুকে মুখ ঘোষ” কড়কড় করে উঠলেন চাচী।
“আরে ধুর এসব কী কোন, ছোট মানুষ এগুলা বুঝে নাকি”, জলি তেমন আমলে নিলো না।
“হুঁহ….” অবজ্ঞা’র একটা শব্দ করলেন চাচী।
শাড়ি’র ভাজ ঠিক করে আবার খাটের উপর বসলেন, দু’হাত পিছনে নিয়ে চুল ঝাড়লেন জোরের সাথে, খোপা বেধে আবারও হেলান দিলেন খাটের কাঁধে। আমি আড়চোখে তাকালাম জলি’র বুকের উপর, স্তনযুগল এখনো অনাবৃত। চোখের আসক্তি ঠিকই টের পেয়েছিল জলি। শাড়ি সরানো’র কোনও চেষ্টায় করলো না, বরং হাত মাথা`র উপর উচিয়ে মেলে ধরল ভিজে জবজবে বগল। একবার তাকিয়ে চোখ ফিরিয়ে নিলাম সেদিক থেকে, তবে অর্ধ-খোলা স্তনের আকর্ষণ কী সহজে ছাড়ে।
“কে ফোন করছিলো?”
“কে আবার, ওই রাহেলা মাগী”
“কী কয়?”
“ওই একই কথা, মাগীরে পাইলে কোবাইয়া চুল ছিড়া ফেলাইতাম”
“আমার মনে কয় কী জানেন, ওই হেডমাস্টারের সাথে শুইয়া শুইয়া এগুলা কাম করায়। নাইলে হেডমাস্টার এত টান টানবো ক্যান!!”
“সেইটা আবার কইতে হয় নাকি, যখনই দেখ ওই মাস্টারের ঘরে। আর কাপড়ের যা ছিরি”
“ক্যান এখনো কী স্যালোয়ার-কামিজ পড়ে নাকি?”
“সেদিন শাড়ি পড়ছে, পাতলা ফিনফিনা। পারলে গাও-গতর সব খুইলা দেয়”
“তুমিও যাবা, দেখাইবা মাস্টাররে”
“সেটাই তো পারিনা, পারিনা তো দুধ নাচায় রঙ-ঢং করতে”
কথার এই পর্যায়ে বেশ উত্তেজিত হয়ে পড়লেন চাচী। আঁচল কাধ থেকে নামিয়ে বুকের উপর গুজে দিলেন ঠিক ই, কিন্তু তা সেখানে টিকলো না, ঢলে পড়ল স্তন উন্মুক্ত করে। একহাতে পাখা নিয়ে ঘুরাতে লাগলেন গা’র জোরে, আরও বড় হতে লাগলো কপালে জমা বিন্দুবিন্দু ঘামের ফোটা।
“ওই গামছা দে তো ওইপাশ থেকে”
আমার পাশে রাখা গামছা চাইলেন জলি’র কাছে থেকে। আমার মাথা’র উপর দিয়ে ধরতে চাইলো জলি, আমি শক্ত হয়ে বসে রইলাম। আরেকবার চেষ্টা করতেই উন্মুক্ত স্তনযুগল ঘষা খেয়ে গেল আমার মুখের উপর, কালো শক্ত হয়ে উঠা বোটা বাড়ি খেল সীমের বীচি’র মত। আমি ঠিক নড়লাম না, শক্ত হয়ে বসে রইলাম আগের মতই। “আরে যা না, গামছা দে না”, গুতা দিয়ে বলল জলি।
মৃদু ঢলে গামছা এগিয়ে দিলাম চাচী’র দিকে। হাতে পেতেই আগের মত মুছে ফেলল কাঁধের উপর জমা বিন্দুবিন্দু ঘাম, বগলের উপর হালকা ঘষে চালান করে দিল দুই স্তনের মাঝখানে। এবার কোনও রাখঢাক নেই, জোরের সাথে বসিয়ে দিয়ে শুষে নিতে চাইলো জমে থাকা স্বেদ।
“সেদিন মাস্টারের ঘরে গেছে, ব্লাউজের উপরের বোতাম খোলা। তলে আর কিছু পড়েও নাই।”
“কন কী?”, মেকি উত্Jসাহ দেখালো জলি।
“আর কথায় কথায় সে কী হাসি, একবার হাসে তো শাড়ি যেন খুইলা পড়ে বুক থেইকে”
রানের ফাঁকে মৃদু চুলকাতে লাগলেন জলি, গল্পে তার একদম আগ্রহ নেই। মাঝপথে থেমে যাওয়ায় বেশ বিরক্ত চাচী,
“আবার শুরু হইছে?”, বিরস মুখে জিজ্ঞেস করলেন।
”আর কইয়েন না”
“সেদিন না নতুন ডাক্তারের কাছে গেলি?”
“কত ডাক্তার, কত কবিরাজ। দুই দিন যায়, তিন দিনের মাথায় আবার আসে”
“হু…….পয়সা তো আর কম খরচ করলি না”
“আর পয়সা, এত দৌড়াদৌড়ি।”
হতাশায় মাথা ডুবিয়ে দিলেন জলি, পা’দুখানি জড়ো করে পাছা ঠেলে দিলো সামনের দিকে।
“সালেকের মা এক কবিরাজের কথা কইছিল……”,
“হ গেছিলাম”
“কী কয় কবিরাজ?”
“ফালতু কবিরাজ, কয় বাচ্চা পোলাপাইনের কষ নামাইয়া লাগাইতে, বজ্জাত লোক”
“কইছে যখন তদবির কইরা দেখ, চেষ্টা তো কম করলি না”
“আরে ধুর, ওই জিনিস পামু কই”
“কবিরাজরে কইতি, যোগাড় কইরা দিত”, টিপ্পনী’র সুর চাচী’র গলায়।
“একখান গুতা দিমু নাকি” চোখের ইঙ্গিতে আমাকে দেখানোর চেষ্টা করল জলি। কিছুই বুঝলাম না, হা করে তাকিয়ে রইলাম চাচী’র দিকে।
“অ্যায় নাহ, কী করতে আবার কী হইবো”, মেকি রাগ দেখলেন চাচী। আবারো অসহায়ের মত তাকালাম জলি’র দিকে, সবকিছুই মাথা’র উপর দিয়ে যাচ্ছে।
“কিচ্ছু হইবো না, আপনি খালি একটু টাইট হইয়া বসেন”
তেমন কোনকিছুরই আলামত দেখালো না চাচী, বরং হাতজোড়া উপরে তুলে বিশাল এক হাই তুললেন। মৃদু হেলে বালিশ টেনে নিলেন মাথা’র নিচে, দেহখানি সোজা করে পা বাড়িয়ে দিলেন আমার দিকে, “সরে বস।” আমি জলি’র আরও কাছাকাছি সরে গেলাম, প্রায় মিশে গেলাম তার বুকের সাথে।
“সইড়া বস, আমারে তো একদম ফেলায় দিলি”, হাতের উপর জলি’র দুধের মৃদু চাপ অনুভব করলাম। চাচী পা গুটিয়ে জায়গা করে দিলেন, শাড়ি উঠে গেল হাটু’র উপরে। আমি সরে বসলাম চাচী’র পা বরাবর।
“কখন গেছিলি কবিরাজের কাছে”
“গেছিলাম দিন দুই আগে”
আবার চুলকাতে শুরু করল জলি, তবে এবার কাপড়ের উপরে থেকে নয়, কাপড় তুলে। আমার চোখ পড়তেই কাপড় নামিয়ে নিল, টেনে ঢেকে দিল চুলকানির জায়গা। আমি অপ্রস্তুতের মতো তাকালাম চাচী’র দিকে, দেখেও না দেখা’র ভান করলেন চাচী।
“গেলি আমারে কইবি না”
“ক্যান তুমি কী করবা?”
“তদবির ছিল একটা, গরম কবিরাজ শুনছি”
কথার এ ফাঁকে জলি আবার চুলকাতে শুরু করল, আমার সামনেই টেনে ধরল অনেকখানি।
“এভাবে চুলকাইছ না, ঘাও আরও বড় হইবো”
থামার কোনও লক্ষণই দেখালো না জলি, “ঘামে ভিজলে একছের পুইড়া যায়”, পা দু’টা ফাক করে যেন আরো মেলে ধরতে চাইল বাতাসে। আমি হতভম্ব হয়ে গেলাম, এক ঝলক দেখে চাচী’র দিকে সোজা হলাম আবার।
চাচী কাত হলেন। বুকের কাপড় কখনোই ছিল না, একপাশে ঘুরতেই আটার বস্তার মত ঢলে পড়ল ভারী স্তনযুগল। বগল চুলকে পাখা তুলে নিলেন হাতে, হালকা’র উপর ঘুরাতে লাগলেন বুকের উপর।
“দেখি তোর ঘা কেমুন পাকছে”, পাখা’র বাট দিয়ে মৃদু গুতা দিলেন জলি’র হাঁটু’র উপর। সাড়া দিয়ে জলিও পা ছড়িয়ে দিল দু’পাশে, চাচী’র সাথে আমিও দেখলাম দগদগে একটা ক্ষত। তবে তারও চেয়ে আকর্ষণীয় ছিল ত্রিভুজের উপর নড়বড়ে ঝুলে থাকা শাড়ি। কুচকি’র নিচে কালো হয়ে নেমে গেছে। শরীরের এ অংশে লোম জন্মায় না, লালচে ক্ষতের উপর এদিক ওদিক সাদা ফুস্কুরী, অবস্থা বেশ সঙ্গীন বলেই মনে হচ্ছে।
“তুই এই গরমের মধ্যে এমুন ছালা-বস্তা পইড়া আছোস ক্যান?” আমার দিকে ইঙ্গিত করল জলি। আমি কোনো কথা বললাম না, একবার তার দিকে তাকিয়ে আবার চোখ ফিরিয়ে নিলাম।
“সকাল থেইকা কী কাপড় বদলায় নাই, তুই কাপড় চোপড় কিছু আনোস নাই?”, অনুসন্ধিৎসুর চোখে তাকালেন চাচী।
“নাহ আজকে চলে যাব তো, আম্মু কিছু দেয় নাই।”
“আজকে আর যাওয়া হইছে, ওই তোর ভাইয়ের এক পুরানো লুঙ্গি দে পাগলটারে”
“আমি লুঙ্গি পড়তে জানি না”
“লুঙ্গি আবার পড়তে জানা লাগে নাকি”, খানিকটা ব্যঙ্গোক্তি’র মত শোনাল জলি’র গলা।
কোথায় থেকে এক পুরোনো লুঙ্গি এনে হাজির করল জলি, লম্বায় আমার গলা পর্যন্ত। হাতে নিয়ে কিছুক্ষণ নেড়েচেড়ে দেখলাম, মাথা দিয়ে গলাতেই নেমে গেল গোড়ালি পর্যন্ত।
“যা তোর পাঞ্জাবি কিনতে হবে না”, হেসে উঠলো জলি।
“এত বড় জিনিস বাঁধবো কেমন করে”
“কোমড়ের কাছে গুটায় নে”, বাঁধা`র দায়িত্ব নিজে নিয়ে নিলো জলি।
“নাহ আমিই পারি”, জোর করে ছিনিয়ে নিতে চাইলাম আমি। তবে কাজটা যে খুব একটা ঠিক হয়নি, বুঝলাম খাটে উঠার সময়। সামান্য নাড়ানাড়িতেই খুলে গেল দুর্বল বাঁধন, কোনরকমে চেপে গুঁজে দিলাম তখনকার মত।
“অ্যায় তোর কোমড়ে তাগা নাই?”, ঠেলা দিয়ে উঠে বসল জলি।
“তাগা কী?”
আমার জিজ্ঞাসু চোখের দিকে হতাশভাবে তাকালো জলি, কোমড় থেকে কালো এক সুতা বের করে দেখালো, “এইটা তাগা”
“কিন্তু……”
“কিন্তু কী?”
“কিন্তু এইটা দিয়া কাপড়ের পট্টি বেধে রাখে না, আমি এটা দিয়ে কী করব”
“পট্টি বেধে রাখে!!…………………….কোথ� �য় দেখছিস পট্টি বাঁধতে”, দুইজনের মুখ বেশ হাসি হাসি।
“দেখছি এক জায়গায়”
“কই তোর মায়েরে দেখছস নাকি?”
আমি সম্পূর্ণ আকাশ থেকে পড়লাম, “নাহ আম্মু কে দেখবো কেন??”
“তাহলে কোথায় দেখছিস?” কোমড়ে মৃদু গুতা দিল জলি, সুড়সুড়িতে মুচড়ে উঠলাম।
“দেখছি আমাদের বুয়া পড়ছিলো, দুপুরে ঘুমায়ছিল, তখন দেখছি”
“বুয়া ঘুমায় থাকলেই এসব দেখে বেড়াস, না”, আবারও সুড়সুড়ি দিলো জলি।
আবারও লজ্জা পাওয়ার অভিনয় করলাম, ঠোট কামড়ে এমন ভাব করলাম যেন খুব লজ্জা পাচ্ছি।
“কুতকুতি তো ভালই আছে”, বগলে আঙুল ঢুকিয়ে কাতুকুতু দিতে চাইল জলি। শক্ত করে চেপে রইলাম, তেমন সুবিধা করতে পারলো না, হাত আমার কাঁধের উপর তুলে মৃদু ঝুঁকে এলো মাথা’র উপর।
“সারাদিন এগুলা করিস, তোর মা অফিসে চলে যায়, আর বুয়া’র সাথে এগুলা করিস”
“আমি কিছু করি নাই তো”
“কিছু করিস নাই, বুয়া তোরে এমনি খুইলা দেখাইছে”
আমি চুপ করে গেলাম, এ প্রশ্নের জবাব আসলেই আমার কাছে নেই। সুযোগ বুঝে বগলের মধ্যে আঙুল চালনা করে দিল জলি, তবে কাতুকুতু দেয়ার বদলে বয়ে নিয়ে গেল বুক পর্যন্ত, খামছা দেয়ার ভান করে খাবলে ধরল বুকের উপর। লাফ দিতে গিয়েও দিলাম না, কারন বুকের উপর সেঁটে আছে জলি’র হাত।
“বুয়া’র দুধ ধরছিস কখনো?” ন্যাড়া’র মত প্রশ্ন করল জলি।
উত্তর দিলাম না, একবার তাকিয়ে মাথা নিচু করে নিলাম। খুব আস্বোওয়াস্তি লাগছে, কারন তিনি বুকের উপর আমার অদৃশ্য স্তন টেপা’র চেষ্টা করছেন, হাত দিয়ে আঙুল ছড়িয়ে দেবার চেষ্টা করেও কোনও লাভ হচ্ছে না।
“খুব সোজা, শোন করবি কী যখন ঘুমায় থাকে তখন যাবি…………. “
ছোটার জন্যে বেশ মরিয়া হয়ে উঠলাম, হ্যাচকা টান দিতেই জলি ছেড়ে দিল, টাল সামলাতে না পেরে গিয়ে পড়লাম চাচী’র পাছা’র কাছে। দু’জনের মুখেই হাসি, আমি চাচী’র পা আঁকড়ে থাকার চেষ্টা করলাম কিছুক্ষণ। ধস্তাধস্তিতে শাড়ি সরে গেছে অনেক আগেই, আমার হাতের নিচে সেই সদ্য কামানো চকচকে পৃষ্ঠদেশ, কমলালেবু’র কোয়া’র মত যোনীপথ ঢেকে থাকা দুটি ঠোঁট।
“ওই তোর লুঙ্গি কই”, পিঠের দিকে গুঁতা মারলেন চাচী। নিচে তাকিয়ে দেখি লুঙ্গি’র অবস্থা আসলেই ছেড়াবেড়া। এখনো চাচী’র পা ধরে আছি, শাড়ি তুলে ঠিক করার চেষ্টা করলেন ঠিকই কিন্তু লাভ হল না, গড়িয়ে পড়ে গেল কোমড়ের কাছে, তিনি দ্বিতীয়বার চেষ্টা করলেন না। এক ঝলক দেখে আবার চোখ ফিরিয়ে নিলাম জলি’র দিকে, আধো-লাল দাত বেরিয়ে আছে ভারী ঠোঁটের ফাক গলিয়ে, সম্পূর্ণ ব্যাপারটিতে বেশ মজা পাচ্ছেন তিনি।
হটাত্J পা’দুটি দুপাশে ছড়িয়ে দিলেন চাচী, সম্পূর্ণ উন্মুক্ত করে যেন বিছিয়ে দিতে চাইলেন আমার সামনে। চোখ বড়বড় করে তাকিয়ে আছি, চাচী শাড়ি আরো তুলে নিলেন, কোমোড়ের কাছে গুঁজে অনাবৃত করলেন সম্পূর্ণ যোনীদেশ। তলপেটের নিচে চামড়া’র রঙের পার্থক্য দেখে বোঝা যায় লোমের ব্যুত্Jপত্তি, সেখানেই হাত বাড়িয়ে দিলাম, ছুঁতে চাইলাম মনের অজান্তে। চাচী কোনও কথা বললেন না, বিছিয়ে রাখলেন না বোঝা’র ভান করে। আরেকটু হাত বাড়িয়ে কুঁচকি’র উপর বসিয়ে দিলাম আঙ্গুল, দাবিয়ে গড়িয়ে নিতে চাইলাম নিচের দিকে।
“অ্যাঁয়”, রিনরিনে গলায় অভিযোগ করলেন চাচী, তবে ছড়িয়ে নেয়ার কোনও চেষ্টায় করলেন না। সুযোগ পেতেই আরেকবার হাত বুলালাম, কাঁটা’র মত হাতে বিধলো কামানো লোমের গোড়া। তবে থামলাম না, ঢুকিয়ে দিলাম মাঝখানের খাঁজ বরাবর। কোথায় থেকে জল এসে জায়গাটা পিচ্ছিল করে দিছে, তার মধ্যেই আঙ্গুলের গাঁইতি চালিয়ে দিলাম, বুড়ো আঙুল চেপে ধরলাম বাইরের ঠোটের উপর। ঠেলা দিয়ে হাত সরিয়ে দিলেন চাচী।
এতক্ষণ বসেই ছিল জলি, ঝাপিয়ে পড়লাম তার বুকের উপর, খপ করে ধরে ফেললাম ডান স্তন। তেমন বাধা দিল না জলি, যেন তৈরি ছিল এমন আগ্রাসনের জন্য। শাড়ি সরিয়ে দুই স্তন নিয়ে নিলাম দুই থাবায়, খাবলাতে লাগলাম রাজ্যের যত জোর দিয়ে। তেমন কোনও রা নেই জলি’র চেহারায়, বরং হাত মাথা’র উপর তুলে দুধ বিছিয়ে দিল বুকের উপর। মুহুর্তেই আঙ্গুলের ফাকে নিয়ে নিলাম দুই চুচি, তালু দিয়ে তুলে ধরলাম বুকের উপর। ছেলেমানুষি দেখে মৃদু হাসলো জলি, আমল দিলাম না, আঙুল বিছিয়ে চাপতে লাগলাম মনের সুখে।
লুঙ্গি’র নিচে অজগরটা ফুঁসে উঠেছিল বেশ আগে থেকেই, চেপে ধরলাম জলি’র পায়ের উপর। সরিয়ে দিয়ে হাতের তালুতে নিয়ে নিলো জলি, বেকায়দায় ডানে সরে গেলাম। দু’পা ফাক করে মাঝখানে টেনে নিলো জলি, খানিকটা অপ্রস্তুত হয়ে গেলাম, খুব একটা নিশ্চিত ছিলাম না কী করবে। শাড়ি তুলে বের করল ঘন বন-জঙ্গলের বসতি, অন্য সময় হলে ঘেন্না ধরে যেত, এখন খুব সহজে হাতে নিলাম, লোমের মাঝেই খুঁজে পেতে চললাম গিরিখাত, উপত্যকা। তবে বেশিক্ষণ টিকতে পারলাম না, তলপেটে অনুভব করলাম মৃদু টান। অবস্থা ঠিক বুঝতে পেরেছিল জলি, মুণ্ডী টেনে নিয়ে বসিয়ে দিলো ঘা’র উপরে, চরম উদ্দীপনায় ছেড়ে দিলাম, “আহ।” 

Apni Meyeder Shorirer Kon Ongo Te Beshi Akristo Hon?

 

About Me

www.420.blogspot.com
MBBS in MALE
View my complete profile